মোবাইল অ্যাপ পেতে আপনার অ্যান্ড্রয়েড ফোনের প্লে-স্টোর থেকে ডাউনলোড করুন | নিজের এলাকার খবর জানাতে হোয়াটসঅ্যাপ করুন 9232119011
logo
Breaking News
সাইকেল আগরবাতি বাজারে আনল পুষ্করিণী | প্রর্দশিত হল "অথ বৃষ মঙ্গল কথা" | আধার সেন্টারের লাইনে মহিলা-পুরুষের একই লাইন, সম্মানহানির অভিযোগ গ্রাহকদের | সরকারি সার ও কীটনাশক কৃষিজীবিদের না দিয়ে মাটিতে পুঁতে ফেলার অভিযোগে আন্দোলনে বামেরা | চাকরিক্ষেত্রে দুর্নীতি, ভোট পরবর্তী হিংসার বিরুদ্ধে বিজেপির অবস্থান-বিক্ষোভ | রেল সংস্কারের কাজের জন্য বিপর্যস্ত পরিষেবা, পরিবর্তন রুট, বাতিল ট্রেন | রাজ্য প্রতিশ্রুতি দিলেও বাঁকুড়া-বর্ধমান সেতু না হওয়ার অভিযোগ অগ্নিমিত্রার | নড়াইলে উদ্ধার ২১৫ পিস ইয়াবা, গ্রেফতার এক অভিযুক্ত | জলে ডুবে মৃত্যু হলো এক সেনা কর্মীর | লুমিনিস নিয়ে এল লি-অন ব্যাটারি |

ইন্টারস্টিশিয়াল লেসার থেরাপির সাহায্যে গর্ভস্থ শিশুকে নতুন জীবন প্রদান অ্যাপেলোর

2021-10-07 15:42:33
কলকাতা সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ স্লাইডার সাম্প্রতিক পোস্ট মেডিকেল
ইন্টারস্টিশিয়াল লেসার থেরাপির সাহায্যে গর্ভস্থ শিশুকে নতুন জীবন প্রদান অ্যাপেলোর

 

নিজস্ব প্রতিনিধি: পূর্ব ভারতে প্রথমবার অ্যাপোলো মাল্টিস্পেশালটি হসপিটালের ডাক্তাররা ডায়োড লেসার ব্যবহার করে লেসার থেরাপির সাহায্যে একটি গর্ভস্থ শিশুকে নতুন জীবন দিয়েছেন। ইন্টারস্টিশিয়াল ডায়োড লেসার থেরাপিতে একটি সূক্ষ্ম সূঁচ মায়ের জরায়ুতে প্রবেশ করানো হয়। তা থেকে কিছু লেসার বিম বেরিয়ে রুগ্ন শিশুটির শরীরে প্রবেশ করে, ফলে তার মৃত্যু হয়। এমন করা হয় যাতে সুস্থতর যমজটিকে বাঁচানো যায়। আল্ট্রা সাউন্ডের অবিরাম সহায়তায় এই প্রোসিডিওর চালানো হয়।

আজকাল অনেকেই বেশি বয়সে বাবা-মা হওয়ার সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন এবং সেই কারণে IVF-এর ব্যবহার বেড়ে গেছে। এর ফলে যমজ সন্তানের সংখ্যা উল্লেখযোগ্যভাবে বেড়ে গেছে। এই মুহূর্তে প্রতি পঞ্চাশজন গর্ভবতী মহিলার একজনের গর্ভে যমজ সন্তান পাওয়া যাচ্ছে, আর যমজ সন্তানবিশিষ্ট গর্ভাবস্থার ঝুঁকি সবসময় বেশি। যমজ গর্ভাবস্থার ৬৬% হল ডাইকোরিয়োনিক (২টি পৃথক ডিম্বাণু এবং শুক্রাণু থেকে ভ্রূণগুলি তৈরি হয় এবং জরায়ুর মধ্যে পৃথক প্রকোষ্ঠে পৃথক রক্তপ্রবাহে পুষ্ট হয়) আর ৩৩% মনোকোরিয়োনিক (১টি ডিম্বাণু এবং ১টি শুক্রাণু থেকেই ভ্রূণগুলি তৈরি হয় এবং জরায়ুর মধ্যে একই প্রকোষ্ঠে একই রক্তপ্রবাহে পুষ্ট হয়)।

মনোকোরিয়োনিক গর্ভাবস্থায় এক ধরনের ক্রস (সিলেক্টিভ) ইন্ট্রাইউটেরাইন গ্রোথ রেস্ট্রিকশনের প্রবল সম্ভাবনা থাকে, যার নাম টুইন-টু-টুইন-ট্রান্সফিউশন সিনড্রোম (TTTS)। এটি জন্মের আগেই যমজদের মৃত্যুর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কারণ। এটা প্রায় ১০-১৫% মনোকোরিয়োনিক যমজ গর্ভাবস্থায় সাধারণভাবে দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে ঘটে। এর ফলে একটি শিশুর বৃদ্ধি আশানুরূপ হয় না এবং অন্যটির তুলনায় কম হয়। এরকম হওয়ার কারণ হল একই প্লাসেন্টা থেকে দুজনের জন্য রক্ত প্রবাহিত হওয়ার ফলে ভারসাম্যহীনতার সৃষ্টি হয়। একটি ভ্রূণ তথাকথিত দাতা এবং অন্যটি গ্রহীতায় পরিণত হয়।

এর চিকিৎসা না করালে মৃত্যুর আগেই এদের মৃত্যু অবশ্যম্ভাবী। একজনের মৃত্যু হয় পুষ্টির অভাবে, অন্যজনের অতিরিক্ত পুষ্টির ফলে। দ্বিতীয়ত, যদি দুর্বলতর শিশুটির মধ্যে পুষ্টির অভাবের ফলে কোনো ক্লট বা কার্ডিয়াক ত্রুটি থাকে, তাহলে সেই সমস্যা প্লাসেন্টার মধ্যে দিয়ে সুস্থতর শিশুটির মধ্যে চলে যায় এবং জরায়ুর মধ্যে দুর্বলতর শিশুটির মৃত্যুর ৭২ ঘন্টার মধ্যে সুস্থতর শিশুটির মৃত্যু হয়। অ্যাপোলো হাসপাতালে হওয়া প্রোসিডিওরটির ক্ষেত্রে এই সমস্যাটি ধরা পড়েছিল মা গর্ভবতী হওয়ার ১৪তম সপ্তাহে। তখন গর্ভের মধ্যে দুটি শিশুরই যথাযথ বৃদ্ধি নিশ্চিত করে দুজনকেই বাঁচানো অসম্ভব।

ইন্টারস্টিশিয়াল লেসার থেরাপি হল একমাত্র প্রোসিডিওর, যা অন্তত একটি শিশুকে বাঁচাতে পারে। ভ্রূণ ও প্লাসেন্টা দেখার জন্য আল্ট্রা সাউন্ডের সাহায্য নিয়ে, একটিমাত্র প্রোসিডিওরের মাধ্যমে, এই কৌশলে দুটি শিশুর মধ্যেকার ধমনীগুলি কেটে দেওয়া হয়। ফলে দুর্বলতর দাতা শিশুটির পুষ্টি বন্ধ হয়ে যায় আর সুস্থতর শিশুটি ফিটাসের মধ্যে বাড়তেই থাকে।

ডাঃ জয়ন্ত কুমার গুপ্ত, ডিরেক্টর অ্যান্ড এইচওডি অবস্টেট্রিক্স অ্যান্ড গায়নকোলজি, অ্যাপোলো মাল্টিস্পেশালটি হসপিটালস, কলকাতা বললেন “বাবা-মায়েদের পক্ষে জন্মের আগেই যমজদের একজনকে ত্যাগ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া সত্যিই খুব শক্ত। কিন্তু দুজনের একজনকে বাঁচানোর এটাই একমাত্র পদ্ধতি। নইলে দুজনেই মারা যাবে। অ্যাপোলোতে আমরা পূর্ব ভারতে এই প্রথম ইন্টারস্টিশিয়াল লেসার থেরাপি করলাম, যাতে যমজদের একজনকে অন্তত বাঁচানো যায়। টুইন-টু-টুইন-ট্রান্সফিউশন সিনড্রোমের (TTTS) একটা কেসে এই চিকিৎসা প্রয়োগ করা হল। এই সমস্যাটা কেবল আইডেনটিকাল টুইনদেরই হয়, কারণ স্বভাবত তারা একই প্লাসেন্টা থেকে পুষ্ট হয়। আমরা আশা করছি আরও বেশি টুইন-টু-টুইন-ট্রান্সফিউশন সিনড্রোমে (TTTS) আক্রান্ত গর্ভবতী মহিলার জন্য এই প্রোসিডিওর করতে পারব, যাতে তাঁরা ইন্ট্রাইউটেরাইন গ্রোথ রেস্ট্রিকশনের কারণে তাঁদের সন্তানদের না হারান। তার জন্যে গর্ভাবস্থায় USG সহ নিয়মিত চেক-আপের মাধ্যমে দ্রুত রোগনির্ণয় ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ।”

Latest tweets

Social Media


Download Android App
About Us

Kolkata Prime Time আমাদের নিউজ পোর্টাল সর্বশেষ প্রস্তাব ও ব্রেকিং নিউজ হয়.

Owner : DIBYENDU GHOSAL

স্বত্বাধিকারী : দিব্যেন্দু ঘোষাল

Contact: 9232119011

E-mail : kolkatapritime@gmail.com

Address :

Kolkata Prime Time, S.P. PALLY, REGENT PARK, KOLKATA- 700093

©️ সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

Copyright 2019 | All Right Reserved by Kolkata Prime Time Group